চট্টগ্রামরবিবার , ২৬ নভেম্বর ২০২৩
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ইসলাম
  5. খেলাধুলা
  6. গণমাধ্যম
  7. চট্টগ্রামের খবর
  8. জাতীয়
  9. জেলা/উপজেলা
  10. তথ্য প্রযুক্তি
  11. ধর্ম
  12. নারী ও শিশু
  13. নির্বাচনের মাঠ
  14. প্রেস বিজ্ঞপ্ত
  15. ফিচার
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নির্বাচনে জিতলেও আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ কী

Nandi
নভেম্বর ২৬, ২০২৩ ১০:২০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বদরুদ্দীন উমর

সংলাপ নাকচ। রাজনৈতিক সংকট সমাধান হয়নি। বাড়ছে অর্থনৈতিক সংকটও। হরতাল-অবরোধ করছে বিএনপি ও সমমনারা। নেতাদের অনেকে কারাগারে, বাকিরা আত্মগোপনে। চলছে দ্বাদশ সংসদের নির্বাচনী ট্রেন। প্রার্থী বাছাইয়ে ব্যস্ত আওয়ামী লীগ ও শরিকরা। ‘কিংস পার্টি’ও প্রার্থী ভাগাতে দিচ্ছে লোভনীয় টোপ ও চাপ। সর্বত্র উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। এ পরিস্থিতিতে যা বলছেন বিশিষ্টজন

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন আগামী ৭ জানুয়ারি ২০২৪ সাধারণ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে। ভারত, পাকিস্তান, নেপাল ইত্যাদি পার্শ্ববর্তী দেশসহ সারা দুনিয়ার বিভিন্ন দেশের নিরপেক্ষ হিসেবে নির্বাচন কমিশনের যে গ্রহণযোগ্যতা জনগণ ও রাজনৈতিক মহলে আছে, বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনের সেটা নেই। কারণ, ক্ষমতাসীন সরকার ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনকে পুরোপুরি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রেখে এক তামাশায় পরিণত করে সমগ্র নির্বাচন ব্যবস্থাকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন ব্যবস্থাকে যেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছিল, তাতে নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক সংস্থা হিসেবে পরিণত হয়েছিল এক ঠুঁটো জগন্নাথে।

আওয়ামী লীগ যেভাবে আমলাতন্ত্র, পুলিশসহ বিভিন্ন সশস্ত্র বাহিনী, বিচার বিভাগ ইত্যাদি রাষ্ট্রীয় সংস্থাকে নিজের অঙ্গসংগঠনে পরিণত করেছে, সেইভাবে নির্বাচন কমিশনকে তারা নিজেদের অঙ্গীভূত করেছে। এর কোনো পৃথক স্বাধীন সত্তা নেই। সংবিধানকে পদদলিত করেই আওয়ামী লীগ সরকার এ কাজ করছে। এ পরিস্থিতিতে নির্বাচন কমিশন যা কিছু করছে, তার সবকিছুই তারা করছে সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী। এর ফলে নির্বাচন কমিশনের ওপর দেশের জনগণ ও রাজনৈতিক মহলের অনাস্থা এক স্বাভাবিক ব্যাপার।

নির্বাচন কমিশন সম্পর্কে এ কথা বলার প্রয়োজন হলো এ কারণে যে, দেশের বর্তমান অবস্থা সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের উপযুক্ত না হওয়া সত্ত্বেও নির্বাচন কমিশন তার নিরপেক্ষতা বজায় না রেখে দেশে সাধারণ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছে। তার ফলে এ নিয়ে দেশে এখন যেভাবে বিরোধী দলগুলোর নেতাকর্মী হাজারে হাজারে ধরপাকড় করা হচ্ছে, তাদের আত্মীয়স্বজনকে পর্যন্ত ধরে নিয়ে আটক করছে, সাধারণভাবে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ওপর হামলা করছে, তাতে সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো পরিবেশ দেশে নেই এবং এ পরিস্থিতিতে নির্বাচন অনুষ্ঠান তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। কারণ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন শর্তসাপেক্ষ। দেশে যদি সরকারবিরোধী কার্যকলাপের সুযোগ না থাকে, বিরোধী দলগুলোর প্রচার-প্রচারণা যদি বন্ধ রাখতে হয়, তাহলে সেই অবস্থায় যে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়, তা বলা বাহুল্য। যে পরিস্থিতি এখন সরকার কর্তৃক সৃষ্টি হয়েছে, তাতে নির্বাচনে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে জনগণের প্রতিনিধির নির্বাচনের কোনো সুযোগ নেই। বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর দশ-বারো হাজার নেতাকর্মীকে মিথ্যা মামলা দিয়ে অথবা কোনো মামলা না দিয়ে, বেপরোয়াভাবে গ্রেপ্তার করে আটক রাখা হয়েছে; যাতে নির্বাচনে জনগণ কর্তৃক প্রতিনিধি নির্বাচনের ব্যাপারে একটা ভিন্ন তামাশা ছাড়া আর কী?

আরেক তামাশার ব্যাপার হচ্ছে সংলাপ। সাধারণভাবে জনগণ এবং আন্তর্জাতিক মহল চান, সরকার ও বিরোধী দলগুলোর মধ্যে বিশেষত, দুই প্রধান দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সংলাপ। কিন্তু উভয় দলই সংলাপে চূড়ান্তভাবে নারাজ। এ ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের অবস্থান হাস্যকর এবং সেই সঙ্গে বিপজ্জনকও বটে। তারা হাজার হাজার বিএনপির নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে রেখেছে। এবং বাকি যারা আছে, তাদের গ্রেপ্তার করার জন্য খুঁজে বেড়াচ্ছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও তারা বলছে, কার সঙ্গে সংলাপ করব? কোথায় তারা? কোথায় তাদের নেতা? যাদের সঙ্গে সংলাপে যাওয়ার কথা, তাদের গ্রেপ্তার করে রেখে এসব কথা বলা এক আতঙ্কের ব্যাপার। এর চেয়ে বড় স্বেচ্ছাচারিতার দৃষ্টান্ত আর কী হতে পারে?

বিএনপি, সিপিবিসহ বিভিন্ন বামপন্থি দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় এ নির্বাচন সবার অংশগ্রহণমূলক হচ্ছে না। এটা বেপরোয়া আওয়ামী লীগ সরকারের জন্যও একটি বিব্রতকর ব্যাপার। এ জন্য তারা বিএনপির কিছু লোককে লোভ দেখিয়ে নির্বাচনে নামানোর চেষ্টা করছে। এ ছাড়া অনেক ভুয়া দল খাড়া করে তারা দেখাতে চেষ্টা করছে, আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে। এটা তাদের এক নির্বোধ চিন্তা। কারণ, যতই তারা এভাবে নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক ‘প্রমাণ’ করার চেষ্টা করুক, আসল পরিস্থিতি যে একেবারে অন্য রকম, এটা সবাই জানে। সবাই জানে যে, নির্বাচনে প্রকৃতপক্ষে আওয়ামী লীগ ছাড়া আর উল্লেখযোগ্য কোনো দল অংশগ্রহণ করছে না এবং এই নির্বাচনে নিজেদের প্রতিনিধি নির্বাচনের কোনো সুযোগ জনগণের নেই। যেখানে প্রার্থী শুধু এক দলের বা এক দলের সমর্থকদের, সেখানে প্রতিনিধি বাছাইয়ের সুযোগ কোথায়?

এখন যা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে তা হলো, নির্বাচন ৭ জানুয়ারি একতরফাভাবে হবে এবং আওয়ামী লীগ ‘বিরাট বিজয়’ অর্জন করে সরকার গঠন করবে। কিন্তু এই সাফল্য সত্ত্বেও আওয়ামী লীগের বিপদ আছে। ১৯৯৬ সালে বিএনপি নির্বাচনে জিতে সরকার গঠন করলেও তাদের পদত্যাগ করতে হয়েছিল। এদিক দিয়ে নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগের সেই অবস্থা হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা। তাদের অবস্থা হবে বজ্র আঁটুনি ফস্কা গেরোর মতো।

দেশের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি ঘোরতর সংকটজনক হবে। বর্তমানে যে ব্যবসায়ীরা বাজারের ওপর পরিপূর্ণ নিয়ন্ত্রণ রেখে মূল্যবৃদ্ধি করে জনগণের জীবন উত্তরোত্তর দুর্বিষহ করছে, তারা আরও বেপরোয়া হবে। এর ফলে জনগণের মধ্যে সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অনেক বৃদ্ধি পাবে। বিএনপি এবং অন্য বিরোধী পক্ষরা বসে থাকবে না। তারা সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন চালিয়ে যাবে এবং নতুন নির্বাচনের দাবি করবে।

অর্থনীতির সংকট বৃদ্ধি পাবে এবং নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাবে। চোর-দুর্নীতিবাজরা লাখ লাখ কোটি টাকা হুন্ডির মাধ্যমে পাচার করছে। এর ফলে হুন্ডির বাজার তেজি হচ্ছে। বিদেশে কর্মরত শ্রমিকরা ক্রমে অধিক সংখ্যায় ব্যাংকের পরিবর্তে হুন্ডির মাধ্যমে দেশে টাকা পাঠিয়ে বৈদেশিক মুদ্রার পরিমাণ কমিয়ে আনছে। আন্ডার এবং ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে একই কাজ হচ্ছে। এর ফলে বিদেশি মুদ্রার সংকট প্রকট আকার ধারণ করবে। এর ওপর সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকবে না। আসলে সরকারের সঙ্গে সম্পর্কিত লোকেরাই এ পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে।

যে বিদেশি শক্তিরা বাংলাদেশে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন চেয়ে ব্যর্থ হবে, তারা বিশেষত, আমেরিকা বসে থাকবে না। এভাবে হাঁপ ছেড়ে বসে থাকা আমেরিকানদের অভ্যাস নয়। ভারত, চীন, রাশিয়া আওয়ামী লীগ সরকারকে সমর্থন করায় তারা রাজনৈতিক চাপ দিয়ে সুবিধা করতে না পারলেও অর্থনীতির অনেক কলকাঠি তাদের হাতে। তাদের আছে বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ। সর্বোপরি তাদের আছে বাংলাদেশের গার্মেন্ট বাজার। বাংলাদেশের গার্মেন্টের ৮০ শতাংশের ক্রেতা আমেরিকা, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডা। তারা যদি বাংলাদেশ থেকে মুখ ফিরিয়ে ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া ইত্যাদি দেশের দিকে তাকায়, তাহলে বাংলাদেশে এক ভয়াবহ অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকট তৈরি হবে। কারণ, গার্মেন্ট হলো বাংলাদেশের ৭০-৮০ শতাংশ বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনকারী শিল্প। এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে বর্তমান আওয়ামী লীগ সমর্থক গার্মেন্ট মালিকরাও যে আওয়ামী লীগকে ছাড় দেবে না– এটা সবারই বোঝার কথা।

কাজেই আগামী ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ তিন-চতুর্থাংশের বেশি আসন দখল করে সরকার গঠন করলেও ক্ষমতায় টিকে থাকা তাদের পক্ষে অসম্ভব হবে। বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর বিরোধিতা, শাসকশ্রেণির একটা শক্তিশালী অংশের বিরোধিতা এবং আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশের বিরোধিতার মুখে আওয়ামী লীগ সরকারকে বাধ্য হয়ে ক্ষমতা ছাড়তে হবে। নির্বাচনের সাফল্যের কথা ভেবে এখন নাচানাচি করলেও এ ছাড়া আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ আর কী হতে পারে?

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।